Koster bangla golpo – otopor shudhu kosto

– কি ব্যাপার তুমি এমন করতেছো কেন?
– কে আপনি? (নেহা)
– এই তুমি দুষ্টুমি করতেছো?
– দেখুন, আপনি রং নাম্বারে ফোন করেছেন।
– জ্বি না আমি রং নাম্বারে নয় বরং রাইট নাম্বারেই ফোন
করেছি।
– কার কাছে ফোন করেছেন সেটা তো বলুন?
– তোমার কাছে।
– আপনি যদি নাম নাহ বলেন তো আমি কেটে দিবো।
– আমি নেহার কাছে ফোন করেছি।
– আমি নেহা নই।
– দেখো এবার খুব রেগে যাচ্ছি কিন্তু।
– সব কিছুর একটা লিমিট আছে, ফাজলামো করতেছেন?
– বাবুনি আমি কি করেছি বলো? তাহলে সরি চেয়ে নিবো,
কিন্তু প্লিজ এমন করোনা।
– ও হ্যালো কে আপনার বাবুনি হ্যা? মুখ সামলে কথা বলুন।
– ওহ আচ্ছা, বুঝেছি, আমি জানতাম তুমি একদিন এমন করবাই,
কিন্তু আমার কি দোষ বলো, আমি সুন্দর নই এইটা কি আমার
ভুল?
– খুব ফালতু মানুষ তো আপনি এমনি অচেনা নাম্বারে ফোন
করেছেন, তাও উপর আবার কি সব যা নয় তা বলতেছেন।
– ঠিক আছে, আর কখনো তোমাকে ফোন দিবো না। আর কখনও
সামনে আসবো না তোমায়, আর কখনও খুজে পাবে না আমায়।
শুধু তুমি ভালো থেকও তার সাথে। ভালো থেকো।
– না, মানে..
নেহার কথা না শুনেই কেটে দিল আলভি। নেহার মনের মধ্যে
কি অবস্থা সেটা শুধু নেহা ই জানে। সে পারছে না তার
অনুভুতি গুলো কারো সাথে শেয়ার করতে। কারন তখন
আলভির সাথে সে এই সব কথা বলতে চায়নি।
শুধুই তার বাবা মায়ের সন্দেহ হচ্ছিল,এবং আলভির সাথে
যখন কথা বলছিল তখন তারা নেহার পাশেই বসে ছিল। এবং
তারাই বলেছিল “কে ফোন করেছে, রিসিভ করতে” তাই ওইসব
কথা বলতে হল নেহা কে। কারন সে চায়নি তার পুলিশ বাবা
আলভির কোনো ক্ষতি করুক।
নেহার সত্তি নাম নিধি, যেটা তার বাবা মা ডাকে। আর
নেহা নাম টা শুধু ই অালভির জন্য ছিল। তাই নেহার বাবা
মা বুঝেছে ছেলেটা ভুল নাম্বারে ফোন করেছে হয়তবা। তাই
তারা কিছু নাহ বলে চলে গেল। এমন সময় দরজা টা লাগিয়ে
কাদতে লাগলো নেহা। কারন সে আলভি কে কষ্ট দিয়েছে।
তাই বার বার ফোন ও মেসেজ দিচ্ছে আলভির নাম্বারে।
অপর দিকে, সেই ঘটনার পর পরই ফোন টা বন্ধ করে, সিম খানা
ভেঙ্গে ফেলে দিল আলভি। নাহ সে আর কখনও বিরক্ত করতে
চায়না নেহা কে। চট্টগ্রামে নিজের পরিবার কে রেখে
ঢাকায় একটা এসে একটা চাকরি করছিল আলভি।
কিন্তু ঢাকা তে আর সে থাকতে চায়না, কারন এখানে থেকে
নেহা কে অন্য কারো সাথে সে দেখতে পারবেনা। তাই আজ
রাতের বাসে নয়ত ট্রেনে এই শহর ছেড়ে চট্টগ্রামে চলে
যাবে সে। আর কখনও বিরক্ত করতে চায়না নেহা কে।সে
থাকুক তার মত। তাই যেই ভাবা সেই কাজ।
ঢাকা ছেড়ে, সব বন্ধন পিছে ফেলে। অশ্রু চোখে কাদতে
কাদতে শহর ছেড়ে চট্টগ্রাম চলে যায় সে। আর এভাবেই শেষ
হয়ে গেল দুটি ভালবাসা, খুব ভালবাসত দুজন দুজন কে। কিন্তু
আজ সব শেষ হয়ে গেল।
আবার কবে দেখা হবে তাদের? কবে আবার একসাথে হবে
তারা, কিভাবে বলতে পারবে নেহা, সেই দিনের সমস্যাটার
কথা। কিভাবে বোঝাবে আলভি তার মনকে, যে নেহা আর
কাউকে নয় শুধুই তাকে এখনও ভাল বাসে। তার জন্যই এমন
করেছে।
আবার হয়তবা কখনই এইসব কিছু সামনে আসবে না। চিরতরে
শেষ হয়ে যাবে দুটি মনের ভালবাসার স্বপ্ন গুলো। যা আর
কখনো জোড়া লাগা হয়তবা সম্ভব হবে না। কখনওই নাহ।

Source story

Advertisements

Author: hrsohel

I am a medical technologist, freelancer, web marketer and SEO expert.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s